রবিবার, ৭ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ || ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ || ২৪শে রজব, ১৪৪২ হিজরি

বিনা পারিশ্রমিকে খানপুর হাসপাতালে কাজ করতেন সেলিম আকন্দ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

ডেস্ক রিপোর্টঃ

নারায়ণগঞ্জ খানপুরে ৩০০ শয্যা হাসপাতালের করোনা ইউনিটের দায়িত্ব পালন করা সেলিম আকন্দ(২৫) নামের এক তরুণ ডিপ্লোমা চিকিৎসক গাজীপুরের কাপাসিয়ায় জ্বর, সর্দি-কাশি ও গলাব্যথা নিয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন।

মঙ্গলবার রাত ২ টা ৩০মিনিটের দিকে নিজ বাড়িতে মারা যান ওই চিকিৎসক। তার বাড়ি গাজীপুর জেলার কাপাসিয়া উপজেলার টোক ইউনিয়নের উলুসারা গ্রামে। রাজধানীর এসপিকেএস ম্যাটস থেকে ৩ বছরের একাডেমীক কোর্স শেষ করে নারায়ণগঞ্জে খানপুরে ৩০০ শয্যা  হাসপাতালে ইন্টার্নশিপ করেন এবং পরবর্তীতে নিজের দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিনা পারিশ্রমিকে খানপুর ৩০০ শয্যা  হাসপাতালে কাজ করতেন তিনি।

জানা গেছে গত মার্চ মাসের ১৪ থেকে ২৪ তারিখ পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ খানপুর ৩০০ শয্যা  হাসপাতালে বিদেশ ফেরতদের জন্য  যে করোনা ইউনিট করা হয়েছল সেই করোনা ইউনিট ডিউটিরত অবস্থায় ছিলেন সেলিম আকন্দ।

কাপাসিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবদুস সালাম সরকার জানান, কোভিড-১৯ এর অন্যান্য উপসর্গ থাকলেও ওই ডিপ্লোমা চিকিৎসকের শ্বাসকষ্ট ছিল না। এরপরও তাকে কোভিড-১৯ পজিটিভ হিসেবে সন্দেহ করা হচ্ছে। ফলে তার নমুনা সংগ্রহ করে রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানে (আইইডিসিআর পাঠিয়েছি। একইসঙ্গে ওই ডিপ্লোমা চিকিৎসকের সংস্পর্শে থাকা তার মা-বাবা, দুই ভাই ও এক  বোনের নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়।

ডা. আবদুস সালাম সরকার জানান, ‘আইইডিসিআর-এর নির্দেশনা মতো (বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রটোকল অনুযায়ী) মরদেহের দাফন সম্পন্ন করেছি।’
এই বিষয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ডিপ্লোমা চিকিৎসকদের জাতীয় সংগঠন বাংলাদেশ ডিপ্লোমা মেডিকেল এ্যাসোসিয়েশন (বিডিএমএ) ও ম্যাটস শিক্ষার্থীদের জাতীয় সংগঠন বাংলাদেশ ডিপ্লোমা মেডিকেল স্টুডেন্ট’স এ্যাসোসিয়েশন্ এর নেতাগণসহ সাধারণ ডিপ্লোমা চিকিৎসকগণ মরহুমের বিদায়ী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন।

Responses

লেখক পরিচিতি