সোমবার, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ || ৪ঠা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ || ৬ই জমাদিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

ভ্রাম্যমাণ আদালতে আইনজীবীকে দণ্ড, উচ্চতর তদন্ত কমিটি চেয়ে রিট

সুপ্রিম কোর্টের সকল আইটি অফিসারকে শোকজ আপিল বিভাগের
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

বরিশালে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে আইনজীবী রবিউল ইসলাম রিপনকে দণ্ড দেওয়ার ঘটনা তদন্তে একটি উচ্চতর কমিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট আবেদন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৪ মে) ই-মেইলের মাধ্যমে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ফরহাদ উদ্দিন আহমেদ ভূঁইয়া এ রিট দায়ের করেন।

রিটে আইনজীবী রিপনকে দণ্ড দেওয়ার ঘটনায় জড়িত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুল হুদার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে ভ্রাম্যমাণ আদালতের ক্ষমতার অপব্যবহারকারী ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুল হুদা ও তাদের সহযোগীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে।

আবেদনে পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ আদালতের সাজা প্রদান কেন অসাংবিধানিক ও অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তাও জানতে চাওয়া হয়।

রিটে আইন মন্ত্রণালয় বিচার, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সচিব ও সংশ্লিষ্ট নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুল হুদাকে বিবাদী করা হয়েছে।

গত ২ মে বরিশালে টিসিবির পণ্য বিক্রিতে বাধা দেওয়া ও ট্যাগ অফিসারকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগে এক আইনজীবীকে ৭ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ দণ্ডাদেশ প্রদান করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. নাজমুল হুদা। দণ্ডপ্রাপ্তের নাম অ্যাডভোকেট রবিউল ইসলাম রিপন। তিনি নগরীর ডেফুলিয়া এলাকার বাসিন্দা।

এ বিষয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জানান, টিসিবির এক ডিলার ট্রাকে করে ন্যায্যমূল্যে পণ্য বিক্রি করছিলেন। তখন রবিউল ইসলাম রিপন নামে এক ব্যক্তি টিসিবির বিরুদ্ধে অকারণে নানা অভিযোগ করেন। বিষয়টি দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা টিসিবির কর্মকর্তাকে জানাচ্ছিলেন। তখন তার মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে তাকে লাঞ্ছিত করেন অভিযুক্ত রিপন। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত সরকারি কাজে বাধা দেওয়া এবং সরকারি কর্মকর্তাকে লাঞ্ছিত করার দায়ে রিপনকে ৭ দিনের কারাদণ্ড দিয়ে কারাগারে পাঠায়।

লেখক পরিচিতি

Responses