শনিবার , ২৩ মার্চ ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত
ঢাকা বার কাউন্সিল নির্বাচনে আওয়ামীপন্থীদের নিরঙ্কুশ জয়

ঢাকা বার কাউন্সিল নির্বাচনে আওয়ামীপন্থীদের নিরঙ্কুশ জয়

মার্চ ৯, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা আইনজীবী সমিতির ২০১৯-২০ কার্যনির্বাহী পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী সমর্থিত আইনজীবীদের সাদা প্যানেল নিরঙ্কুশ বিজয় লাভ করেছে। এতে ২৭টি পদের মধ্যে সভাপতি সাধারণ সম্পাদকসহ ১৮টি পদেই জয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত আইনজীবীরা। এর মধ্যে ৯টি সম্পাদকীয় ও ৯টি সদস্য পদ পেয়েছেন তারা। অপরদিকে বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত নীল প্যানেল সিনিয়র সহসভাপতিসহ তিনটি সম্পাদকীয় ও ছয়টি সদস্য পদ পেয়েছে।

গত ২৭ ফেব্রুয়ারি ও ৭ মার্চ দুই দফা ভোট শেষে শুক্রবার মধ্যরাতে ফল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার।

নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাদা প্যানেলে ৯টি সম্পাদকীয় পদে বিজয়ীরা হলেন- সভাপতি পদে গাজী শাহ আলম, সাধারণ সম্পাদক মো. আসাদুজ্জামান খান রচি, সহ-সভাপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেন দুলাল, সিনিয়র সহ-সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মাদ জাহাঙ্গীর আলম মোল্লা, সহ-সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মাদ ওমর ফারুক আসিফ, দফতর সম্পাদক মো. জাহিদুল ইসলাম কাদির, সমাজকল্যাণ সম্পাদক হুমায়ুন খন্দকার টগর ও ক্রীড়া সম্পাদক পদে মো. উজ্জ্বল মিয়া।

অপরদিকে বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত নীল প্যানেলের ৩ সম্পাদকীয় পদে বিজয়ীরা হলেন-সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে আব্দুস সালাম দেওয়ান, গ্রন্থাগার সম্পাদক পদে মো. জিয়াউল হক জিয়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে মোরশেদা খাতুন শিল্পী।

নির্বাচিতদের মধ্যে সভাপতি- গাজী মোঃ শাহ আলম- ৫৩১৭ নিকটতম ইকবাল- ৪০৬৪, সিনিয়র সহ-সভাপতি – আব্দুস সালাম দেওয়ান- ৪৮৪১ নিকটতম হাবিবুর রহমান-৪৫৩০, সহ সভাপতি- জাহাঙ্গীর হোসেন- ৫১০৫ নিকটতম মিজানুর- ৪২৫৫, ট্রেজারার- আফ্রাদ কবির- ৪৮৯৪ নিকটতম আজাদ- ৪৪৭৮, সিনিয়র সহসাধারণ সম্পাদক- জাহাঙ্গীর মোল্লা- ৪৮৯৮ নিকটতম নিহার ফারুক- ৪৪৪৬, সহসাধারণ সম্পাদক- আসিফ- ৪৮৮৪ নিকটতম ছোটন- ৪৪৩৭, লাইব্রেরী সম্পাদক- জিয়া- ৫০৭২ নিকটতম রুকু- ৪২৮৭, সাংস্কৃতিক সম্পাদক- শিল্পী- ৪৮০২ নিকটতম পিয়া- ৪৪৮০, দপ্তর সম্পাদক- কাদির-৫০৬৫ নিকটতম বাঘা-৪২৩৯, ক্রীড়া সম্পাদক- উজ্জ্বল- ৪৮৩৫ নিকটতম আকাশ- ৪৫০৯, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক- টগর- ৫২৪৮ নিকটতম রানা পেয়েছেন ৪১১৯ ভোট।

নির্বাচনে এবার ১৭ হাজার ৮৯৭ জন তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করার কথা ছিল। তবে দুদিনব্যাপী ভোটগ্রহণে ৯ হাজার ৩৬৪ জন ভোট দিয়েছেন। বাকি ৮ হাজার ৫৩৩ জন তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেননি।

এ নির্বাচনে নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন বারের সাবেক সভাপতি মোখলেছুর রহমান বাদল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.