মঙ্গলবার , ২৫ জুন ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত
পাঁচ দিনের রিমান্ডে নুসরাতের বান্ধবী মনি

পাঁচ দিনের রিমান্ডে নুসরাতের বান্ধবী মনি

এপ্রিল ১৭, ২০১৯

ফেনী প্রতিনিধি: ফেনীর সোনাগাজীতে মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যা মামলায় গ্রেফতার নুসবাতের বান্ধবী কামরুন্নাহার মনির পাঁচদিনের রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেছেন আদালত।

আজ বুধবার দুপুরে ফেনীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সরাফ উদ্দিন আহমেদ এ রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেন।

ফেনীর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) পরিদর্শক ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মো. শাহ আলম জানান, দুপুরে মনিকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়। শুনানি শেষে আদালত পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে সোমবার রাতে ফেনী থেকে নুসরাতকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যায় জড়িত কামরুন্নাহার মনিকে আটক করে পিবিআই। নুসরাত হত্যার অন্যতম আসামি শাহাদাত হোসেন শামীমের সম্পর্কে ভাগনি হন মনি। ঘটনার দিন মনি এক লিটার কেরোসিন বহন করে মাদরাসায় নিয়ে গিয়েছিলেন বলে জানিয়েছে পিবিআই।

আলোচিত এ হত্যা মামলায় এখন পর্যন্ত ১৭ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মামলার এজহারভুক্ত আট আসামির মধ্যে সাতজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। হাফেজ আবদুল কাদের নামে এজহারভুক্ত এক আসামিকে পলাতক রয়েছে।

অপরদিকে নুসরাত হত্যা মামলায় মোহাম্মদ শরিফ নামে এক আসামিকে ঢাকার কামরাঙ্গীরচর থেকে আটক করা হয়েছে বলে পিবিআই এর একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। তবে ফেনীর পিবিআইয়ের কোনও কর্মকর্তা এ বিষেয়ে নির্দিষ্ট করে কিছু জানাতে পারেনি। শরিফসহ এ মামলায় এ পর্যন্ত ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এদিকে বুধবার সকালে নুসরাত জাহান রাফিকে হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে ফেনী ও সোনাগাজীতে একাধিক সংগঠন মানববন্ধন করেছে। সকালে ফেনী শহরের শান্তি নিকেতন এলাকায় সিটি গার্লস, সেন্ট্রাল পাবলিক, শান্তি নিকেতন প্রি-ক্যাডেট ইনস্টিটিউটসহ একাধিক প্রতিষ্ঠান মানববন্ধন করে।

প্রসঙ্গত, ৬ এপ্রিল সকালে আলিম পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসায় যান ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি। তার বান্ধবী নিশাতকে ছাদের ওপর কেউ মারধর করছে এমন সংবাদে তিনি ছাদে যান। সেখানে বোরকাপরা ৪-৫ জন তাকে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ-দৌলার বিরুদ্ধে করা শ্লীলতাহানির মামলা তুলে নিতে চাপ দেয়। পরে মামলা তুলে নিতে অস্বীকৃতি জানালে তারা রাফির গায়ে আগুন দিয়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় সোমবার রাতে অধ্যক্ষ সিরাজ উদ-দৌলা ও পৌর কাউন্সিলর মুকছুদ আলমসহ আটজনের নাম উল্লেখ করে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা করেন অগ্নিদগ্ধ রাফির বড় ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান।

এর আগে ২৭ মার্চ ওই ছাত্রীকে নিজ কক্ষে নিয়ে শ্লীলতাহানি করেন অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলা। এ ঘটনায় ছাত্রীর মা শিরিন আক্তার বাদী হয়ে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা করেন। ওই দিনই অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলাকে আটক করে পুলিশ। সে ঘটনার পর থেকে তিনি কারাগারে আছেন।

এদিকে নুসরাত গত বুধবার রাত সাড়ে ৯টায় ঢাকা মেডিকেলের আইসিইউতেই মারা যান। পরদিন জানাজা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এ/কে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.