বুধবার , ১০ জুলাই ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত
না ফেরার দেশে সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার আমিনুল হক

না ফেরার দেশে সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার আমিনুল হক

এপ্রিল ২১, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: দীর্ঘদিন ধরে লিভার ক্যানসারে আক্রান্ত বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান, সাবেক মন্ত্রী, সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী ব্যারিস্টার মো. আমিনুল হক ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে আমিনুল হক এক ছেলে ও এক মেয়েসহ আত্মীয়-স্বজন ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তার মৃত্যুতে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও মহা-সচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু, সাবেক সংসদ সদস্য নাদিম মোস্তফা শোক প্রকাশ করেছেন।

রবিবার সকাল ১০টায় রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বলে জানান মরহুমের ভাতিজা ব্যারিস্টার অনিক আর হক। ‘বাদ জোহর সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে মরহুমের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। পরে রাজশাহীর গ্রামের বাড়িতে মরদেহ দাফন করা হবে।’

তিনি বলেন, রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবদুস সালাম শাওয়াল বলেন, ‘সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) সকালে ফিরে আসেন তিনি। এরপর থেকেই ইউনাইটেড হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিসিইউ) চিকিৎসা নিচ্ছিলেন ব্যারিস্টার আমিনুল।’

ব্যারিস্টার মো. আমিনুল হক একজন রাজনীতিবিদ ও সাবেক মন্ত্রী। তিনি রাজশাহী-১ আসন থেকে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) মনোনয়নে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং ২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত খালেদা জিয়ার দ্বিতীয় মন্ত্রীসভায় ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। আমিনুল রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী উপজেলার কেল্লাবাড়–ইপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম ফাহিম উদ্দিন বিশ্বাস ও মাতার নাম আনোয়ারা খাতুন। শিক্ষাজীবনে তিনি আইন বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন।

১৯৯১ সালের পঞ্চম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমিনুল হক বিএনপির মনোনয়নে রাজশাহী-১ আসন থেকে নির্বাচন করে ৬১,৯৭৫ ভোট লাভ করেন ও আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. মহসীনকে পরাজিত করে প্রথমবারের মত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির একদলীয় নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়, ১৯৯৬ সালের সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৮৩,৯৯৪ ভোট পেয়ে ও ২০০১ সালে অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একই আসনে ১,৩০,৬৩১ ভোট পেয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তবে ২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ওমর ফারুক চৌধুরীর কাছে পরাজিত হন।

২০০১ সালের নির্বাচনের পর বিএনপি সরকার গঠন করলে তিনি ১০ অক্টোবর ২০০১ তারিখে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পান। ২৯শে অক্টোবর ২০০৬ তারিখ পর্যন্ত তিনি এ দায়িত্ব পালন করেন।

২০০৫ সালে আমিনুল মন্ত্রী থাকাকালীন বিএনপি নেতা রাজশাহী-৩ আসনের তৎকালীন সাংসদ আবু হেনা, আমিনুলের বিরুদ্ধে উদ্রবাদী নেতা বাংলা ভাইকে মদদ দেওয়ার অভিযোগ আনেন। ২০০৭ সালের জুলাইতে তার অবর্তমানে রাজশাহীর জেলা আদালত আমিনুলকে ২০০৪ সালে বাগমারা উপজেলায় জঙ্গী সংগঠন জামাত-উল-মুজাহিদীন বাংলাদেশকে মদদ ও মানুষকে নির্যাতনের অভিযোগে ৩০ বছর ৬ মাসের কারাদণ্ড প্রদান করে। ২০০৯ সালের জুলাইতে আমিনুল আদালতে আত্মসমর্পণ করেন ও তাকে জেলে পাঠানো হয়। পরবর্তীতে তিনি জামিনে মুক্তি পান।

আমিনুল হক ব্যক্তিগত জীবনে আভা হকের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তার ভাই এনামুল হক বাংলাদেশ পুলিশের সাবেক আইজি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.