বৃহস্পতিবার , ২০ জুন ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত
১৩ জিম্মি উদ্ধারে গিয়ে ২০ প্রতারক আটক

১৩ জিম্মি উদ্ধারে গিয়ে ২০ প্রতারক আটক

মে ১১, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: তারা চাকরি দেয়ার নাম করে যুবকদের জিম্মি করে হাতিয়ে নিতো কোটি কোটি টাকা। শিক্ষিত যুবকরাই ছিলো তাদের টার্গেট। এ জন্য তারা একটি ভুয়া প্রতিষ্ঠান তৈরী করেছিল। নাম লাইফওয়ে বাংলাদেশ (প্রা.) লিমিটেড। এই কোম্পানির ডেরায় অভিযান চালিয়ে শুক্রবার ১৩ জিম্মিকে উদ্ধার করেছে র‌্যাব। এ সময় ওই কোম্পানির নামে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের ২০ সদস্যকে আটক করে র‍্যাব-১।

শুক্রবার বিকেলে র‌্যাব-১ এর স্পেশালাইজ গাজীপুরের পোড়াবাড়ী ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার লে. কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন গণমাধ্যমকে এসব তথ্য দেন।

উদ্ধার ১৩ যুবক হলেন- চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ থানার দক্ষিণ ভোড়াদাড়ি গ্রামের কাজল প্রধানের ছেলে ফরিদ উদ্দিন (২৪), পশ্চিম পিংড়া গ্রামের মিজানুর রহমানের ছেলে তানজিদ হোসেন (২১), সদর থানার ধনপুদ্দি গ্রামের মিজান খন্দকারের ছেলে বাবু খন্দকার (২২) ও মো. শামীম খন্দকার (২০), দাসদী গ্রামের ইসমাইল খানের ছেলে বিল্লাল খান (১৮), ওহাব খানের ছেলে শাকিল হোসেন (২০), নাসির উদ্দিনের ছেলে মো. নাহিদ হাসান (২১), রশিদ পাটোয়ারীর ছেলে মো. সানা উল্লাহ পাটোয়ারী (২৩), আমানউল্লাহপুর গ্রামের খোকন গাজীর ছেলে মো. জুয়েল মিয়া (১৮), খেরুদিয়া গ্রামের দেলোয়ার হোসেনের ছেলে আব্দুস সালাম (১৯), হাজীগঞ্জ থানার বানিয়াকান্দা গ্রামের মো. শাহজাহান কবিরের ছেলে শাহাদাত হোসেন (৩২), সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর থানার চাঁদনী মুখা গ্রামের কাউসার আলীর ছেলে মো. আকরাম হোসেন (২০) ও দিনাজপুরের পার্বতীপুর থানার সৈয়দপুর গ্রামের ভবেশ চন্দ্রের ছেলে তন্ময় কুমার (২২)।

আর আটক ২০ প্রতারক হলেন- কিশোরগঞ্জ সদর থানার ঘাগলাইল গ্রামের সুরুজ আলীর ছেলে মো. মিজানুর রহমান (৩০), রাজশাহী জেলার বাঘা থানার মীরগঞ্জ গ্রামের সিরাজুল ইসলানের ছেলে মামুনুর রশিদ (৩০), চুয়াডাঙ্গা জেলা সদর থানার ধুতুরহাট গ্রামের সানোয়ার হোসেনের ছেলে মো. জাহাংগীর আলম (২৫), জামালপুর জেলা সদরের কোটামনি গ্রামের মৃত আব্দুস সোবাহানের ছেলে হুমায়ুন কবির (২৮), কুষ্টিয়ার কন্দরপ্রদীয়া গ্রামের মোখলেছুর রহমানের ছেলে আশরাফুল আলম (২৯), চট্টগ্রামের সাতকানিয়া থানার সোনাকানিয়া গ্রামের শফিকুর রহমানের ছেলে তৈয়াবুর রহমান (২৫), চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানার বালুবাগান এলাকার সাদিকুল ইসলামের ছেলে মাসদিদ (২১), মহনপুর গোরস্থানপাড়া এলাকার একরামুল হকের ছেলে সোহেল রানা (১৯), চড়াগ্রাম বিন্দুপাড়া এলাকার শফিকুল ইসলামের ছেলে কাউসার আলী (২৩), চাঁপাইনবাবগঞ্জের রবিউল ইসলামের ছেলে সাজিদুল ইসলাম (২২), নতুন হাট এলাকার শরিফুল ইসলামের ছেলে রজব আলী (২৩), বাগানপাড়া এলাকার আব্দুল মতিনের ছেলে মোস্তাকিম (২৫), একই জেলার দেবীনগর থানার কলিকাতা এলাকার কাউসার আলীর ছেলে আতাউর রহমান (১৯), গোমস্তাপুর থানার বিবিসন গ্রামের মজিবুর রহমানের ছেলে মেসবাউল হক (২০), ভোলাহাট থানার হাসপুকুর গ্রামের আব্দুল খালেকের ছেলে আরিফ হোসেন (২৪), কুমিল্লার মুরাদনগর থানার নবীয়াবাদ গ্রামের স্বপন সরকারের ছেলে আব্দুল্লাহ আল সুমন (২২), চাঁদপুর জেলা সদর থানার আমানুল্লাহপুর এলাকার শাহ আলম বেপারীর ছেলে শাহাদত হোসেন (১৯), বিধিপুর গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে পিয়ারুল ইসলাম (২৫), ব্রাহ্মণবাড়ীয়ার বিজয়নগর থানার আনন্দগ্রামের আব্দুল হাসিমের ছেলে কাউসার আলম (২০) ও জয়পুরহাট জেলা সদর থানার হাতিল গাড়িয়া কান্ত গ্রামের নাজির রহমানের ছেলে কাউসার রহমান (২৪)।

র‌্যাব কর্মকর্তা মামুন জানান, এমএলএম কোম্পানির সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্র ১৩ জনের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিতে গাজীপুরের বাসন থানাধীন চান্দনা চৌরাস্তার সিয়াম সিএনজি ফিলিংস্টেশন এলাকায় তাদের জিম্মি করে রেখেছে, এমন গোপন খবরে অভিযান চালানো হয়।

র‌্যাব সদস্যরা ওই এলাকার হাফিজুর রহমানের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে প্রতারক চক্রের ২০ সদস্যকে আটক করে। পরে তাদের দেয়া তথ্যে ওই বাড়ির দুটি গোপন কক্ষ থেকে ১৩ জিম্মিকে উদ্ধার করা হয়। অভিযানে আটকদের কাছ থেকে ৭ হাজার ৬০ টাকা ও ১৪টি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়েছে।

জিজ্ঞাসাবাদে প্রতারকরা জানিয়েছেন, তারা একে অপরের যোগসাজশে দীর্ঘদিন গাজীপুরসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় লাইফওয়ে বাংলাদেশ (প্রা.) লিমিটেডে চাকরি দেয়ার নামে শিক্ষিত যুবকদের বন্দি করে তাদের পরিবারের কাছ থেকে অভিনব কায়দায় কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে আসছিল। বৃহস্পতিবার রাতে এমন চক্রের ২০ জনকে আটক করা হয়েছে।
আটকদের সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও জানান র‍্যাব কর্মকর্তা মামুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.