বৃহস্পতিবার , ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত
রূপপুর প্রকল্পের প্রতিবেদন পেলে ব্যবস্থা নেবে দুদক

রূপপুর প্রকল্পের প্রতিবেদন পেলে ব্যবস্থা নেবে দুদক

মে ২২, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক : রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের নির্মাণাধীন ভবনের আসবাবপত্রসহ অন্যান্য আনুষঙ্গিক কাজে ‘অস্বাভাবিক’ ব্যয় তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর ব্যবস্থা নেবে বলে জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

মঙ্গলবার বিকালে নিজ কার্যালয়ে গণমাধ্যম কর্মীদের এই কথা জানান তিনি।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের তদন্ত প্রতিবেদনের জন্য অপেক্ষা করছি উল্লেখ করে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, যেহেতু মিনিস্ট্রি এই বিষয়ে কাজ করছে; আমরা তাদের রিপোর্ট পাওয়ার পর রিপোর্ট দেখব; তারপর যদি দেখি ইনগ্রেডিয়েন্ট আছে; সেখানে ডেফিনিটলি আমরা আইনি পদক্ষেপ নেব।

গণমাধ্যমের প্রতিবেদন দুদকের নজরে এসেছে জানিয়ে ইকবাল মাহমুদ বলেন, দুদক তার নিজস্ব পদ্ধতিতে এগিয়ে যাবে। কথা হলো সেখানে দুর্নীতি হয়েছে কিংবা হয়নি। গণমাধ্যমের যে তথ্য দিয়েছে; তা আমরা দেখেছি। দুদকের কিছু প্রসিডিউর রয়েছে। একটা রিপোর্ট পেয়ে সাথে সাথে আমরা জাম্প করতে পারি না। সেটা দেখতে হয়; বুঝতে হয়; চারদিক দেখতে হয়।

তিনি বলেন, মন্ত্রণালয়ের দুইটি কমিটি এই বিষয়ে কাজ করছে। কমিটির প্রতিবেদন পাওয়ার পর দুদক ব্যবস্থা নেবে। এই ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়া আছে বলেও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের ব্যয় তদন্তে দুটি কমিটি করেছে গৃহায়ণ ও গণপূর্ণ মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে সরকারের অগ্রাধিকার তালিকায় থাকা রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্পের নির্মাণাধীন ভবনের ঠিকাদারের পাওনা পরিশোধ বন্ধ করে দিয়েছে মন্ত্রণালয়।

রবিবার মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. ইফতেখার হোসেনের পাঠানো এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিবৃতি বলা হয়, পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় হতে একজন অতিরিক্ত সচিব এবং গণপূর্ত অধিদপ্তর হতে একজন অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলীর নেতৃত্বে পৃথক দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের সকল প্রকার পেমেন্ট বন্ধ রাখার জন্য গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় হতে ইতোমধ্যে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের ব্যাখ্যায় আরো বলা হয়, ‘রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ডেলিগেটেড ওয়ার্ক হিসেবে গণপূর্ত অধিদপ্তর কর্তৃক নির্মাণাধীন ছয়টি ভবনে আসবাবপত্রসহ অন্যান্য আনুষঙ্গিক কাজের জন্য দাপ্তরিক প্রাক্কলন প্রণয়নপূর্বক ছয়টি প্যাকেজে ই-জিপিতে দরপত্র আহ্বান করা হয়। প্যাকেজসমূহের প্রতিটির ক্রয়মূল্য ৩০ কোটি টাকার নিম্নে প্রাক্কলন করায় গণপূর্ত অধিদপ্তর কর্তৃক অনুমোদন ও ঠিকাদার নিয়োগ করা হয়। এক্ষেত্রে দাপ্তরিক প্রাক্কলন প্রণয়ন, অনুমোদন ও ঠিকাদার নিয়োগে মন্ত্রণালয়ের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।’

‘ওই কাজের বিপরীতে এখনো ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানকে বিল পরিশোধ করা হয়নি। তদন্ত প্রতিবেদনের সুপারিশের আলোকে বাজার মূল্যের সাথে সামঞ্জস্য রেখে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানকে বিল পরিশোধের বিষয়টি নিশ্চিত করা হবে।’

নির্মিত ভবনে আসবাবপত্র কেনা ও ফ্ল্যাটে কেজিখানেক ওজনের একটি বৈদ্যুতিক কেটলি নিচ থেকে ফ্ল্যাটে তুলতেই খরচ ধরা হয় প্রায় তিন হাজার টাকা। একই রকম খরচ দেখানো হয়েছে জামা-কাপড় ইস্ত্রি করার কাজে ব্যবহৃত প্রতিটি ইলেক্ট্রিক আয়রন ওপরে তুলতে। প্রায় আট হাজার টাকা করে কেনা প্রতিটি বৈদ্যুতিক চুলা ফ্ল্যাটে পৌঁছে দিতে খরচ দেখানো হয় সাড়ে ছয় হাজার টাকার বেশি।

এছাড়া প্রতিটি শোয়ার বালিশ ভবনে ওঠাতে খরচ দেখানো হয় ৮০০ টাকা করে। আর একেকটি ওয়াশিং মেশিন ওঠাতে খরচ দেখানো হয় ৩০ হাজার টাকারও বেশি। এভাবে ওয়াশিং মেশিনসহ অন্তত ৫০টি পণ্য ওঠাতে খরচ দেখানো হয় ক্রয়মূল্যের প্রায় অর্ধেক, কোনো কোনোটিতে ৭৫ শতাংশ। অস্বাভাবিক এই অর্থ ব্যয় কেবল ভবনে ওঠানোর ক্ষেত্রেই নয়, আসবাবপত্র কেনার ক্ষেত্রেও দেখানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.