সোমবার , ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত
রোহিঙ্গা সমাবেশের মদতদাতাদের শনাক্ত করেছে তদন্ত কমিটি

রোহিঙ্গা সমাবেশের মদতদাতাদের শনাক্ত করেছে তদন্ত কমিটি

সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৯

কক্সবাজার প্রতিনিধি: প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গাদের মহাসমাবেশের পেছনে কারা জড়িত তা শনাক্ত করেছে তদন্ত কমিটি। গত ৩ সেপ্টেম্বর কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন স্বাক্ষরিত এনজিও ব্যুরোতে পাঠানো প্রতিবেদনে চিহ্নিত মদতদাতাদের নামও উল্লেখ করা হয়েছে। প্রতিবেদনে রোহিঙ্গা নেতা ছাড়াও কক্সবাজারের এনজিও, আইনজীবী, কলেজের প্রভাষক, ‘আরআরসি’র কর্মকর্তা ও পুলিশসহ একাধিক সংগঠনের কর্মকর্তাদের নাম এসেছে।

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, রোহিঙ্গাদের সামাবেশের আগে ‘এডিআরএ’ নামের একটি এনজিও গত ১৯ ও ২১ আগস্ট কক্সবাজারের কলাতলির শালিক রেস্তোরাঁয় বৈঠক করে রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহকে আড়াই লাখ টাকা অনুদান দেয়। এছাড়া ‘আল মারকাজুল ইসলামী সংস্থা’ সমাবেশে রোহিঙ্গাদের জন্য টি-শার্ট তৈরিতে সহযোগিতা করে। পরে ২৫ আগস্ট কুতুপালংয়ের মধুরছড়া এক্সটেনশন-৪ ক্যাম্পে মহাসমাবেশ করে রোহিঙ্গারা।

এছাড়া, নিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ফুটবল খেলার মাঠ ডি-৫ ব্লকে ভিন্ন ভিন্ন সংগঠনের পক্ষে সমাবেশ ও র‌্যালি করা হয়। সমাবেশ সফল করতে ডি-৫ ব্লকে আরআরসি সংগঠনের চেয়ারম্যান সিরাজুল মোস্তফার নেতৃত্বে ২৫ হাজার টাকা করে চাঁদা সরবরাহ করা হয়। সংগঠনের সেক্রেটারি সাইফুল হকের নিকটাত্মীয় ও স্বজন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থান করায়, তাদের কাছ থেকেও চাঁদা সংগ্রহ করা হয়। বিশেষ করে লন্ডনে বসবাসরত নূরুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি প্রায় ৫-৬ মাস আগে সংগঠনের (আরআরসি ) অফিস নির্মাণের জন্য ২ লাখ টাকা অনুদান দেন। এই সংগঠনের মূল কমিটি ২৫ জনের। এবং সমাবেশের টি-শার্ট তৈরি করতে ক্যাম্পে কর্মরত পুলিশের এএসআই বোরহান উদ্দিনের মোটরসাইকেল ব্যবহার করা হয়।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বেশ কিছু সংগঠন কাজ করলেও মুহিবুল্লাহর নেতৃত্বে পরিচালিত এআরএসপিএইচ সংগঠনটি বেশ শক্তিশালী বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। মুহিবুল্লাহর সংগঠনের ৩০০ জন সক্রিয় সদস্য রয়েছে। এই সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক পদে রয়েছেন- উখিয়া সিকদার পাড়া এলাকার আব্দুল করিম ভূঁইয়ার ছেলে উখিয়া কলেজের প্রভাষক নূরুল মাসুদ ভূঁইয়া। ২৫ আগস্ট তিনি উপজেলার মানবাধিকার সংগঠন ‘পিসওয়ে হিউম্যান রাইটস সোসাইটি’র সাধারণ সম্পাদক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এবং তিনি সমাবেশে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন। মাসুদের পূর্ব পুরুষ মিয়ানমারের নাগিরক বলেও উল্লেখ করা হয়। এই সংগঠনের সাত সদস্যের একটি উপদেষ্টা কমিটি রয়েছে, যারা সবাই কক্সবাজারের স্থায়ী বাসিন্দা। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মুহিবুল্লাহর সঙ্গে মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলারের একটি মিটিং হয়। এরপর তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ পান।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, গত ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মহাসমাবেশের ঘটনায় স্থানীয়রা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ে। বিশেষ করে প্রশাসনের অনুমতি না নিয়েই এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোহিঙ্গাদের এই সমাবেশের পেছনের রহস্য জানতে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন এরইমধ্যে এনজিও ব্যুরোতে পাঠানো হয়েছে।

মদতদাতা হিসেবে চিহ্নিতরা হলেন- আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যানিটি রাইটস (এআরএসপিএইচ)-এর সভাপতি মুহিববুল্লাহ, সহ-সভাপতি মাস্টার আব্দুর রহিম, সাধারণ সম্পাদক ও উখিয়া ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক নূরুল মাসুদ ভূঁইয়া, সংগঠনের উপদেষ্টা সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী দুলাল মল্লিক, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক ড. ফরিদুল আলম ও মাওলানা ইউসুফ, কক্সবাজার জেলা দায়রা জজ আদালতের পিপি মাহবুবুর রহমান, কক্সবাজার জেলা দুর্নীতি দমন কমিশনের পিপি মো. আব্দুর রহিম ও ক্যাম্পে নিয়োজিত পুলিশের এএসআই বোরহান উদ্দিন। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, গত মাসের ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা নাগরিকদের বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়ার দুই বছর পূর্তি উপলক্ষে উখিয়ার কুতুপালং এক্সটেনশন-৪ রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মহাসমাবেশ করে রোহিঙ্গারা। প্রশাসন থেকে অনুমতি না নিয়ে কিছু রোহিঙ্গা নেতার সঙ্গে যোগসাজশ করে রোহিঙ্গাদের অধিকার আদায়ে গঠিত ‘ভয়েস অব রোহিঙ্গা’ এবং রোহিঙ্গা রিফিউজি কমিটির (আরআরসি) পক্ষ থেকে এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। ভয়েস অব রোহিঙ্গা ৭০০ সাদা হাফ টি-শার্ট ও ২৮টি ব্যানার উখিয়া উপজেলার মসজিদ মার্কেটের নিশাত প্রিন্টার্স ও মিডিয়া প্রিন্টার্স থেকে ছাপানো হয়। রোহিঙ্গা রিফিউজি কমিউনিটি (আআরসি) সংগঠনের ১০০ হাফ টি-শার্ট ছাপানো হয়েছে কক্সবাজার বাজারঘাটা শাহ মজিদিয়া প্রিন্টার্স থেকে। এছাড়া, এআরএসপিএইচ এবং এনজিও সংস্থা ‘এডিআরএ’ ও ‘আল মারকাজুল ইসলামী সংস্থা’ নামে দুটি এনজিও সমাবেশে রোহিঙ্গাদের টি-শার্ট ও ব্যানার সরবরাহ করেছে। এআরএসপিএইচ-এর উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের এক আইনজীবীসহ কক্সবাজার দায়রা জজ আদালতের একজন পিপি, দুর্নীতি দমন কমিশনের পিপি ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন গবেষক এবং ক্যাম্পে কর্মরত এক এএসআই এই মহাসমাবেশের সঙ্গে জড়িত ছিলেন বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

এ/কে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.