শুক্রবার , ২৭ মার্চ ২০২০
সদ্যপ্রাপ্ত
ডিসি সুলতানার পরিবারের দখলে থাকা ১১ বিঘা জমি ঢাকঢোল পিটিয়ে উদ্ধার

ডিসি সুলতানার পরিবারের দখলে থাকা ১১ বিঘা জমি ঢাকঢোল পিটিয়ে উদ্ধার

March 19, 2020

ডেস্ক রিপোর্ট: কুড়িগ্রাম থেকে প্রত্যাহার করা জেলা প্রশাসক (ডিসি) সুলতানা পারভীনের পরিবারের দখলে অবৈধভাবে থাকা ১১ বিঘা জমি উদ্ধার করা হয়েছে। আদালতের নির্দেশে ফিরে এ জমি বুঝিয়ে দেয়া হযেছে আমিরুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি ও তার স্বজনদের।

বুধবার পঞ্চগড়ের সহকারী জজ আদালতের নির্দেশে পুলিশ ও আদালতের সেরেস্তাদার ঢাকঢোল পিটিয়ে জমির দখল বুঝিয়ে দেন আমিরুলদের।

এই জমিগুলো এতদিন সুলতানা পারভীনের দাপট দেখিয়ে তার বাবা ও স্বজনরা অবৈধভাবে নিজেদের দখলে রেখেছিলেন। প্রায় ১৫ বছর ধরে এই জমি মূল মালিকের বেদখলে ছিল।

আদালতসূত্রে জানা গেছে, পঞ্চগড় সদর উপজেলার হাফিজাবাদ ইউনিয়নের জিয়াবাড়ি গ্রামের আমিরুল ইসলাম ও তার স্বজনরা পৈতৃক সূত্রে পাওয়া ১১ বিঘা জমি দীর্ঘদিন ধরে ভোগদখল করে আসছিলেন। কিন্তু সুলতানা পারভীনের বাবা মোহাম্মদ আলী ও স্বজনরা ডিসির ক্ষমতা দেখিয়ে ওই জমি জবরদখল করে ভোগ করে আসছিলেন।

এ ঘটনায় আমিরুল ও তার স্বজনরা আদালতে মামলা করলে নিম্নআদালতে তাদের পক্ষে রায় দেন। পরে সুলতানার বাবা ও স্বজনরা হাইকোর্টে আপিল করলে আদালত তাদের আপিল খারিজ করে দেন। অবশেষে দীর্ঘ ১৪ পর আদালত ডিসির স্বজনদের অবৈধ দখলে থাকা ১১ বিঘা জমি আমিরুল ইসলাম ও তার স্বজনদের কাছে দখল বুঝিয়ে দেন।

এ বিষয়ে আমিরুল ইসলাম বলেন, ১৩ বছর ধরে মামলা চালানোর পর আদালত আমাদের পক্ষে রায় দেন এবং আদালতের নির্দেশে আমরা ১১ বিঘা জমি বুঝে পেলাম।

পঞ্চগড় সহকারী জজ আদালতের নাজির মো. তমিজ উদ্দিন জানান, আদালতের নির্দেশে আমরা ঢাকঢোল পিটিয়ে জমির মালিকদের জমি বুঝিয়ে দিয়েছি।

জমি দখলে থাকা ডিসি সুলতানা পারভীনের ভাই মোহাম্মদ আলীর ছেলে বাবুল হোসেন ও ফারুক হোসেন জানান, আমার বাবা ১৯৭৩-১৯৭৪ সালে এই জমি কেনেন। সেই সূত্রে আমরা মালিক। এখানে প্রায় সাত বিঘা জমি আমাদের দখলে এবং এক বিঘার মতো আমার চাচার দখলে আছে। এছাড়া অন্য লোকজনের কাছেও আছে। মামলা চলাকালে আমাদের কিছু কাগজ পাওয়া যায়নি। এখন ওই খতিয়ানের অন্য অংশীদাররাও (বাদ পড়া অংশীরা) আবারও বাটোয়ারা মামলা করবেন বলে জানান তিনি। তবে এ ব্যাপারে জানার জন্য প্রত্যাহার হওয়া ডিসি সুলতানা পারভীনের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ৩ মার্চ সুলতানা পারভীন কুড়িগ্রামের ডিসি হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন এবং গত ১৬ মার্চ তাকে প্রত্যাহার করা হয়। এর আগে ১৩ মার্চ বাংলা ট্রিবিউনের কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি আরিফুল ইসলামের বাড়িতে মধ্যরাতে হানা দিয়ে তাকে তুলে ডিসি কার্যালয়ে নিয়ে নির্যাতন শেষে মাদক দিয়ে মোবাইল কোর্ট বসিয়ে এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। ১৫ মার্চ আরিফ মুক্তি পান। এই ঘটনায় কুড়িগ্রামের ডিসি সুলতানা পারভীন, আরডিসি নাজিম উদ্দিন ও দুই সহকারী কমিশনারকে প্রত্যাহার করা হয়।

About বিডি ল নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.