শনিবার , ২০ অক্টোবর ২০১৮
সদ্যপ্রাপ্ত

সানির অব্যাহতির আবেদন দেখলেন বিচারক

আগস্ট ৩১, ২০১৭

ভুল তথ্য প্রদান করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে দায়ের করা মামলায় ক্রিকেটার আরাফাত সানি এবং তার মা নার্গিস আক্তারের অব্যাহতি চেয়ে পুলিশের দেয়া চূড়ান্ত প্রতিবেদনটি ‘দেখিলাম’ বলে স্বাক্ষর করেছেন বিচারক।

বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর হাকিম জিয়ারুল ইসলাম নথিটি স্বাক্ষর করেন। সেই সঙ্গে মামলার মূল নথি মহানগরে থাকায় তা আসলে মামলাটি বদলির জন্য আদেশ দেবেন বলেও জানান আদালত।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদনটি দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মোহাম্মদপুর থানার উপ-পরিদর্শক মো. ইয়াহিয়া। চূড়ান্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, আরাফাত সানির সঙ্গে মামলার বাদীর যে বিবাহ ও কাবিন হয়েছে এর কোনো সত্যতা পাওয়া যায়নি। সানি ও নাসরিন একটি হোটেলে যাতায়াত করতেন। যে রেস্টুরেন্টে তাদের বিয়ে হয়েছে এরও কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

সানির মা নার্গিস সুলতানা লোকজন নিয়ে মামলার বাদীকে মারধরের কথা বলেছেন, এরও কোনো সাক্ষ্য প্রমাণ পাওয়া যায়নি। মামলার বাদী ভুল তথ্য প্রদান করে মামলাটি দায়ের করেছেন। তাই নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ২০০০ (সংশোধিত ২০১৩) এর ১১ (গ) ৩০ ধারা মতে, আসামিদের অব্যাহতির আবেদন করে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হলো- উল্লেখ করা হয় চূড়ান্ত প্রতিবেদনে।

এ বিষয়ে মামলার বাদী নাসরিন সুলতানা জাগো নিউজকে বলেন, সানি ও তার মাকে অব্যাহতির আবেদন দিয়ে যে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছে পুলিশ এর বিরুদ্ধে আমি নারাজি দেব। সানি যদি আমাকে বিয়ে না করে তাহলে ভুয়া কাগজ দিয়ে আমার সঙ্গে প্রতারণা করেছে। এর জন্যও আমি তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করব।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, ২০১৪ সালের ১২ ডিসেম্বরে ক্রিকেটার আরাফাত সানির সঙ্গে পাঁচ লাখ এক টাকা দেনমোহরে নাসরিন সুলতানার বিয়ে হয়। বিয়ের ছয় মাস পর ক্রিকেটার আরাফাত সানি নাসরিনের কাছে ২০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। যৌতুকের টাকার জন্য সানি তার স্ত্রীকে মারধর করেন এবং গালিগালাজ করে ভাড়া বাসায় রেখে যান।

পরবর্তীতে নাসরিন সানির সঙ্গে দেখা করলে সানি তাকে বলেন, যৌতুকের টাকা না দিলে আমার মা তোমার সঙ্গে সংসার করতে দেবেন না এবং এ নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি করলে তোমার পরিণতি খারাপ হবে। কারণ, তোমার কিছু অশ্লীল ছবি আমার মোবাইলে রয়েছে।

মামলায় আরও অভিযোগ করা হয়, এরপর তাকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে সানির মা বাড়ি থেকে বের করে দেন এবং হুমকি দিয়ে বলেন, তোর সঙ্গে আমার ছেলে সংসার করবে না, তাই সম্পর্ক ছিন্ন করার ব্যবস্থা কর। তখন বাদী তার বাসায় চলে যান।

ওই ঘটনায় গত ১ ফেব্রুয়ারি ঢাকার ৪ নং নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে যৌতুকের জন্য মারধরের অভিযোগে ক্রিকেটার আরাফাত সানি ও মা নার্গিস আক্তারের বিরুদ্ধে মামলা করেন সানির স্ত্রী দাবিদার নাসরিন সুলতানা। এর আগে ভিন্ন ধারায় আরও দুটি মামলা করেন নার্গিস।

আদালত মামলাটি এজাহার হিসেবে নেয়ার জন্য মোহাম্মদপুর থানাকে নির্দেশ দেন এবং গত ৮ ফেব্রুয়ারি মোহাম্মদপুর থানা মামলাটি এজাহার হিসেবে রেকর্ড করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*