সোমবার , ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮
সদ্যপ্রাপ্ত

স্বল্প সময়ে জুডিসিয়ারি লিখিত পরীক্ষার ধাপ পার হবেন যেভাবে

আগস্ট ১৪, ২০১৮

বিডিলনিউজঃ

জুডিসিয়ারির লিখিত পরীক্ষার জন্য কমিশন নির্ধারিত সিলেবাস রয়েছে। মোট ১০০০ নম্বরের ১০টি বিষয়ে পরীক্ষায় অবতীর্ণ হতে হবে। এর মধ্যে ৪০০ নম্বর থাকে সাধারণ বিষয়ে আর আইন বিষয়ের উপর ৬০০ নম্বরের পরীক্ষা দিতে হবে। আইন বিষয়গুলোর মধ্যে আবার শেষের ১০০ নম্বর হল অপশনাল বিষয়ে যা ইতোমধ্যে পূরণ করা হয়েছে। মোট ১০টি বিষয়ই সমান গুরুত্ব বহন করে।

সর্বশেষ তথা বিগত ১০ম বিজেএস থেকে কার্যকর সিলেবাস অনুযায়ী বর্তমান জুডিসিয়ারির লিখিত পরীক্ষার বিষয়সমূহ হল:
১: সাধারণ বাংলা-১০০
২: সাধারণ ইংরেজি-১০০
৩: বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক বিষয়সমূহ-১০০
৪: সাধারণ গণিত ও দৈনন্দিন বিজ্ঞান-১০০
৫: দেওয়ানী মামলা সংক্রান্ত আইন-১০০
৬: অপরাধ সংক্রান্ত আইন-১০০
৭: পারিবারিক সম্পর্ক বিষয়ক আইন-১০০
৮: সাংবিধানিক আইন, জেনারেল ক্লজেস এ্যাক্ট ও সাক্ষ্য আইন-১০০
৯: ভূমি, চুক্তি, রেজিস্ট্রেশন, সম্পত্তি হস্তান্তর ও অন্যান্য আইন-১০০
১০: শিশু, নারী, পরিবেশ ও আইনগত সহায়তা প্রদান সংক্রান্ত আইন -১০০ অথবা
দুর্নীতি দমন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, মানব পাচার প্রতিরোধ ও অর্থঋণ সংক্রান্ত আইন-১০০

* Reference Books for Written Exam:

শুরুতেই বলে রাখি লিখিত পরীক্ষার জন্য আইনের বিষয়গুলোর উপর একাডেমিক লাইফে পঠিত বইগুলো অনুসরণ করলে ভাল হবে। তারপরও সর্বশেষ তথা ১০ম বিজেএস লিখিত পরীক্ষার বিষয়সমূহের সিলেবাস এবং প্রশ্নপত্রের আলোকে নিম্নে বিষয়ভিত্তিক কিছু বইয়ের তালিকা দেওয়া হল।

* ১.সাধারণ বাংলা-১০০*

সাধারণ বাংলা বিষয়ে একটি রচনা-২০, একটি ভাবসম্প্রসারণ-১০, একটি সারমর্ম-৫, একটি প্রতিবেদন-১০, একটি অনুবাদ-৫, একটি পত্র-১০, ব্যাকরণ-৩০, সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন-১০ এর উপর উত্তর করতে হবে।
রচনার জন্য মুক্তিযুদ্ধ, সুশাসন ও দুর্নীতি, নারীর ক্ষমতায়ন, জলবায়ু পরিবর্তন, পর্যটন, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা, আইনের শাসন, গণতন্ত্র, শিশুশ্রম ইত্যাদি বিষয়গুলো দেখলে আশা করি কাজ হবে। বাকি বিষয়গুলোর জন্য বিসিএস লেভেলের যেকোন ভাল মানের বই থেকে চর্চা করা যেতে পারে। নিচে কিছু বইয়ের তালিকা দেওয়া হল।

১. প্রফেসর’স বিসিএস বাংলা- লিখিত।
২. বাংলা ভাষা ও সাহিত্য জিজ্ঞাসা- ড. সৌমিত্র শেখর।
৩. বাংলা ভাষার ব্যাকরণ- বাইবোর্ড ৯ম ও ১০ শ্রেণি/ ড. মুনীর চৌধুরী।
৪. বাংলা বানানের নিয়ম- ড.মাহবুবুল হক।
৫. শুদ্ধিকরণ- মুহাম্মদ আসাদুজ্জামান/ প্রফেসর’স প্রকাশন।
৬. এক কথায় প্রকাশ বা বাক্য সংকোচন- প্রফেসর’স প্রকাশন।
৭. বাগধারা বা বাগবিধি- ঐ।
৮. প্রবাদ- প্রবচন- ঐ।

বি.দ্র. সিলেবাসের বিষয়গুলো Cover দিতে হবে। বিশেষ করে ব্যাকরণ অংশে।

* ২. General English-১০০*

General English বিষয়ে একটি Essay-20, একটি Amplification-10, একটি Precis Writing- 5, একটি Report -10, একটি Letter-10, Synonyms( 10 th BJS)- 5, একটি Translation -10, Short Questions-5, Grammatical-25 বিষয়গুলোর উপর উত্তর করতে হবে। Essay বিষয়ে Good governance, Rule of Law, Women Empowerment, Violence against Women, Tourism, Terrorism, Rise of Militancy, The Spirit of Liberation War, Role of Media/ Freedom of the Press, ICT, Freedom of Judiciary ইত্যাদি বিষয়গুলো দেখলে আশা করি কাজ হবে। Grammatical অংশে পরিবর্তন আসতে পারে। তাই সিলেবাসের বিষয়গুলো Wholly Cover দিতে হবে।
যা হোক, নিম্নোক্ত বইগুলো Follow করতে পারেন:
১. Professor ‘s BCS English/ Assurance BCS English – Written.
২. An Easy Approach to English Literature – Aman & Shipon/ Progressive Publishers, Dhaka.
৩. English for Competitive Exams- Professor ‘s Prokashan.

*৩. বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক বিষয়সমূহ-১০০*

এ বিষয়টির সিলেবাস বিশাল। কিন্তু চিন্তার কারণ নাই। সমসাময়িক দেশি – বিদেশি বিষয়গুলো একটু ক্লিয়ার করতে হবে। অনেকটা মূল্যায়নধর্মী প্রশ্ন হয়ে থাকে। বিগত সালের প্রশ্নগুলো দেখলে একটু Idea হবে। কিছু বই কাজে আসতে পারে। যেমন:

১.অ্যাসিওরেন্স বিসিএস বাংলাদেশ বিষয়াবলি।
২. অ্যাসিওরেন্স বিসিএস আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি।
৩. রাজনীতি ও বাংলাদেশের শাসনতান্ত্রিক উন্নয়ন- ১৭৫৭-২০০০- ড. হারুন অর রশিদ।
৪. সম্পাদকীয় সমাচার – BCS বিশেষ সংখ্যা- মহিদ’ স
+ সাম্প্রতিক বিষয়ের (বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক) উপর বিশেষ সাপ্লিমেন্ট টাইপের কিছু প্রকাশনী, যা ঢাকার নীলক্ষেতে পাওয়া যেতে পারে।

* সাধারণ গণিত ও দৈনন্দিন বিজ্ঞান-১০০*

সস্প্রতি গণিত অংশে একটু পরিবর্তনের ছোঁয়া লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ১০ম বিজেএস পরীক্ষায় পাটীগণিত অংশের উপর কিছুটা গুরুত্ব কমানো হয়েছে, যা অনেকটা বিসিএস এর গণিতের প্রশ্নের আদলে করা হয়েছে। তাই এ বিষয়ে একটু সতর্ক হতে হবে। বীজগণিত ও জ্যামিতিতেও সমান গুরুত্ব দিতে হবে।নিম্নোক্ত বইগুলো সহায়ক হতে পারে।
১.অ্যাসিওরেন্স বিসিএস গাণিতিক যুক্তি।
২.৮ম শ্রেণির বাইবোর্ড গণিত বই- পুরাতন।
৩.মাধ্যমিক গণিত সমাধান- দেবব্রত চাকী ( পুরাতন, যা পাটীগণিতের জন্য যথেষ্ট এবং নীলক্ষেতের পুরাতন বই বিক্রির দোকানে পাওয়া যেতে পারে)।
৪.৯ম ও ১০ম শ্রেণির বাইবোর্ড গণিত বইগুলো- পুরাতন।
৫. ওরাকল বিসিএস বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি।
৬.Easy Computer- Easy Publishers.

* ৫. দেওয়ানী মামলা সংক্রান্ত আইন-১০০*

১. দেওয়ানী কার্যবিধি- মোঃ জহুরুল হক/ দেওয়ানী কার্যবিধি সংহিতা- ড. মোহাম্মদ মজিবর রহমান।
২. সুনির্দিষ্ট প্রতিকার আইনের বিশ্লেষণ- আবদুর রহমান হাওলাদার।
৩. তামাদি আইন- সৈয়দ হাসান জামিল।
৪ দেওয়ানী আদালত আইন- মোঃ আব্দুল হালিম।
৫. Court Fees Act & Suits Valuation Act- মোঃ মোসলেম উদ্দিন খান।
৬. ADR & Legal Aid-ড . মোঃ আখতারুজ্জামান।

*৬. অপরাধ সংক্রান্ত আইন- ১০০*

১. ফৌজদারী কার্যবিধি – অধ্যক্ষ এ এ এম মনিরুজ্জামান।
২. Penal code- ঐ
৩. বিশেষ ক্ষমতা আইন- মোঃ আনসার আলী।
৪.মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ও বিধিমালা- বিচারপতি ছিদ্দিকুর রহমান মিয়া/ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ও বিধি- ইশতিয়াক আহমেদ + হাসান মাহমুদ।
৫.The Arms Act + আইন শৃঙ্খলা বিঘ্নকারী অপরাধ (দ্রুত বিচার) আইন + The Negotiable Instruments Act- মাইনর এ্যাক্টস্- আশরাফুল আলম।

*৭. পারিবারিক সম্পর্ক বিষয়ক আইন-১০০*

১.Muslim Law- অধ্যক্ষ এ এ এম মনিরুজ্জামান।
২.Hindu Law- ড. এ বি এম মফিজুল ইসলাম পাটোয়ারী।
৩.Family Courts Ordinance + Muslim Family Laws Ordinance + Dowry Prohibition Act- মাইনর এ্যাক্টস্- আশরাফুল আলম।
৪.Guardians & Wards Act- মোঃ মোসলেম উদ্দিন খান।
৫.DV Act ও শিশু আইন- মোঃ আনোয়ার আলী অ্যাডভোকেট।
৬. ফারায়েজ সমাধান – মোঃ হেলাল উদ্দিন।

*৮. সাংবিধানিক আইন, জেনারেল ক্লজেস এ্যাক্ট ও সাক্ষ্য আইন-১০০*

১. গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান- মূল সংবিধান।
২. সংবিধান, সাংবিধানিক আইন ও রাজনীতিঃ বাংলাদেশ প্রসঙ্গ- মোঃ আব্দুল হালিম।
৩. সংক্ষিপ্ত ইতিহাস ও তথ্য উপাত্তসহ বাংলাদেশের সংবিধান।
৪. General Clauses Act-ড . মোঃ আখতারুজ্জামান।
৫. সাক্ষ্য আইন- সৈয়দ হাসান জামিল।

*৯. ভূমি, চুক্তি, রেজিস্ট্রেশন,
সম্পত্তি হস্তান্তর আইন ও অন্যান্য আইন- ১০০*

১. TP Act- আবদুর রহমান হাওলাদার।
২. চুক্তি আইন- সৈয়দ হাসান জামিল।
৩. SAT Act + NAT Act- ভূমি আইন- অধ্যক্ষ মোঃ আলতাফ হোসেন, অথবা Iqbal Hasan or Bare Acts.
৪. Registration Act- অধ্যক্ষ এ এ এম মনিরুজ্জামান।
৫. Small Cause Courts Act- মোঃ আব্দুল হালিম।
৬. বাড়ী ভাড়ি নিয়ন্ত্রণ আইন- বাসুদেব গাঙ্গুলী।

*১০. শিশু, নারী, পরিবেশ ও আইনগত সহায়তা প্রদান সংক্রান্ত আইন-১০০*

১. পরিবেশ, নারী, শিশু এবং আইনগত সহায়তা প্রদান আইন ও বিধি বিধান- মোঃ আব্দুল হালিম।
২. শিশু আইন + DV Act- পূর্বে বর্ণিত লেখক মোঃ আনোয়ার আলী অ্যাডভোকেট।
৩. নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন- পূর্বে বর্ণিত ‘ বিশেষ ক্ষমতা আইন’ এ অন্তর্ভুক্ত আছে।
৪. পরিবেশ আইন + পরিবেশ আদালত আইন- মাইনর এ্যাক্টস্- আশরাফুল আলম।
৫. Legal Aid- ADR & Legal Aid- ড. মোঃ আখতারুজ্জামান।

অথবা

* দুর্নীতি দমন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, মানব পাচার প্রতিরোধ ও অর্থঋণ সংক্রান্ত আইন*

উপর্যুক্ত আইনগুলো ‘ মাইনর এ্যাক্টস্- আশরাফুল আলম’ এ অন্তর্ভুক্ত আছে।

N.B. ১. আইনের বিষয়গুলোর বিগত সালের প্রশ্নোত্তরের জন্য একটি ভাল মানের সাধারণ বই যেমন: বাংলাদেশ জুডিসিয়াল সার্ভিস পরীক্ষা হ্যান্ডবুক- মোঃ আব্দুল হালিম, বা এ টাইপের অন্য কোন এক বা একাধিক বইও সহায়ক হবে।
২. English medium বা অন্য কোন বইও নিজের মত করে অনুসরণ করা যেতে পারে।

* প্রস্তুতির ধরন ও কৌশল*

অনেকের প্রশ্ন হল উত্তর বাংলা না ইংরেজিতে দিতে হবে? এ বিষয়ে সহজ উত্তর হল আপনি যেটাতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন সেটাতে উত্তর দিন। তবে ইংরেজিতে দিতে পারলে নিঃসন্দেহে ভাল। আর যাই হোক যেন তালগোল পাকিয়ে না ফেলি। হাতের লেখা বেশি সুন্দর না হলেও স্পষ্ট হওয়া উচিৎ, যেন অন্য কেউ সহজে লেখা বুঝতে পারে। ভুল লেখা বা ভুল আনসার করা পরিত্যাজ্য। আবার অনেকে জানতে চান খাতায় কতটুকু লিখতে হবে? এক পাতায় আপনার লেখার ফরম্যাট অনুযায়ী যতটুকু সম্ভব ততটুকু লিখতে পারেন, যেমন, ৮ বা ১০ লাইন বা আরো বেশি। তবে একটু ঘেঁষা ঘেঁষি না হওয়াই ভাল। নিচে লিখিত পরীক্ষার প্রস্তুতি বিষয়ে কিছু সাধারণ নির্দেশনা দেওয়া হল।

১. Over all ভাল করার জন্য সাধারণ বিষয়গুলোতে একটু বিশেষ নজর দিতে হবে। কারণ আইন বিষয়গুলোতে সবাই কম বেশি ভাল করতে পারে। গণিতে Full Answer করতে পারা মানে অনেক এগিয়ে থাকার সম্ভাবনা।
২. বাংলা ও ইংরেজি বিষয়ের ব্যাকরণ অংশগুলো সিলেবাসভিত্তিক ধরে ধরে ক্লিয়ার করুন। Format Change হতে পারে। রচনা বা Essay এর জন্য কিছুটা তথ্য গুছিয়ে রাখুন।
৩. বিজ্ঞানের জন্য শুধু বিসিএস এর বিগত সালের ( ১০ম থেকে বর্তমান) লিখিত পরীক্ষাগুলোর প্রশ্নগুলো ভালভাবে আত্মস্থ করুন। সাথে জুডিসিয়ারির বিগত সালের প্রশ্নগুলোও সমাধান করুন। সিলেবাসের কোন টপিক বাকি থাকলে তা মিলিয়ে বই থেকে মূল বিষয়গুলো ক্লিয়ার করুন।
৪. প্রস্তুতির প্রাথমিক পর্যায়ে জুডিসিয়ারির সর্বশেষ সিলেবাস ও বিগত সালের প্রশ্নগুলো অবশ্যই সংগ্রহ করুন। বিষয়ভিত্তিক পড়ার আগে সংশ্লিষ্ট বিষয়ের বিগত সালের প্রশ্নগুলো একবার চোখ বুলান।
৫. সাধারণ জ্ঞানের অংশগুলোর জন্য চলতি দেশ বিদেশের ঘটনাবলির প্রতি লক্ষ্য রাখুন। কার্য-কারণ বিশ্লেষণ করার মত Concept Clear করুন।
৬. আইনের বিষয়গুলোর ক্ষেত্রে বিগত সালের প্রশ্নগুলো পড়ে Idea নিন। ধারা, অনুচ্ছেদ, বিধি, উদাহরণ,Case Reference ইত্যাদি যত ভালভাবে ও যথাযথভাবে উপস্থাপন করা যায় তত ভাল মার্ক পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। তাই বিষয়গুলোতে জোর দিন।
৭. Leading Case আছে এমন বিষয়গুলো ভালভাবে আত্মস্থ করুন।
৮. সংজ্ঞা, পার্থক্য, তুলনা, গঠন, ক্ষমতা, কার্যাবলি, বৈশিষ্ট্য, পদ্ধতি, প্রকার,ব্যতিক্রম, উদাহরণ, উপাদান, ক্ষেত্র, পরিণতি বা ফলাফল, ইত্যাদি বিষয়গুলো বিবেচনায় নিয়ে সেভাবে প্রস্তুতি গ্রহণ করুন।
৯. উত্তরাধিকার আইন বিষয়ে বিশেষ গুরুত্ব দিন। উদাহরণ আছে এমন আইন, যেমন: Penal Code, সাক্ষ্য আইন, SR Act, চুক্তি আইন ইত্যাদি বিষয়গুলো মূল আইন থেকে ক্লিয়ার করুন।
১০. প্রত্যেক পরীক্ষার আগে সময় বিভাজন নিজের মত করে সাজিয়ে রাখুন। এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। অর্থাৎ, কোন প্রশ্নের জন্য কত সময় দিতে হবে তা আগেই চিন্তা ভাবনা করে রাখুন। সর্বোপরি, স্বাস্থ্যের যথাযথ যত্ন নিন। বর্তমান টাইট সিডিউলে ভালভাবে পরীক্ষা শেষ করতে পারাটাও এখন বড় যোগ্যতা।

* শেষ কথা*

একটা চীনা প্রবাদ আছে- ‘ Oust him and take his place’ বা ‘ধাক্কা দিয়ে তাড়াও, তার স্থান দখল কর’। অর্থাৎ যোগ্যতা দিয়ে স্থান দখল করে নাও। তাই সময় থাকতে সময়কে যথাযথভাবে কাজে লাগাতে হবে। নিজের মত কৌশল উদ্ভাবন করে নিজেকে এগিয়ে রাখার দায়িত্ব নিতে হবে। নিজের সক্ষমতা ও দুর্বলতা নিজেকেই আবিষ্কার করতে হবে। যারা সদ্য LL. M. শেষ করেছেন পুরোদমে ঝাপিয়ে পড়ুন। যাদের LL.M. পরীক্ষা হতে অন্তত ৫/৬ মাস বাকি তাঁরাও এই একমুখী প্রস্তুতি চালিয়ে যান। আর যারা চাকরিজীবী বা প্র্যাকটিসে আছেন, তাঁরাও নিয়ম করে সময় বের করুন এবং প্রয়োজনীয়তা অনুযায়ী বিষয়ভিত্তিক সময় ব্যয় করুন। ‘হয় এবার না হয় নেভার’- মনে মনে লালন করে গতিকে বাড়িয়ে দিন। সবার জন্য শুভ কামনা রইল।

বি.দ্র. : উপর্যুক্ত বিষয়গুলোতে আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা ও মত প্রতিফলিত হয়েছে।

লেখকঃ মোঃ নূরুল হক
সহকারী জজ, গাইবান্ধা ।

 

পুনশ্চঃ লেখাটি লেখকের ফেইসবুক ওয়াল থেকে সংগৃহীত ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*