রবিবার , ১৮ নভেম্বর ২০১৮
সদ্যপ্রাপ্ত

বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতিবৃন্দের সংক্ষিপ্ত জীবনী (পর্ব-১)

এপ্রিল ৩, ২০১৮

বাংলাদশের সংবিধানের ৪৮ অনুচ্ছেদের (৩) দফায় বলা হয়েছে, ‘এই সংবিধানের ৫৬ অনুচ্ছেদের (৩) দফা অনুসারে কেবল প্রধানমন্ত্রী ও ৯৫ অনুচ্ছেদের (১) দফা অনুসারে প্রধান বিচারপতি নিয়োগের ক্ষেত্র ব্যতীত রাষ্ট্রপতি তাঁহার অন্য সকল দায়িত্ব পালনে প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ অনুযায়ী কার্য করিবেন’; এবং সংবিধানের ৯৫(১) অনুচ্ছেদে প্রদত্ত ক্ষমতাবলে মহামান্য রাষ্ট্রপতি প্রধান বিচারপতি নিয়োগ দান করে থাকেন। আর, সংবিধানের ৯৬(১) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী ৬৭ বছর বয়স পর্যন্ত বিচারপতি হিসাবে দায়িত্বে থাকা যায়।

বিচারপতি আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েম বাংলাদেশের প্রথম প্রধান বিচারপতি এবং বাংলাদেশের একজন প্রখ্যাত আইনবিদ। তিনি বাংলাদেশের ৬ষ্ঠ রাষ্ট্রপতি হিসাবে ১৯৭৫ সালের ৬ নভেম্বর থেকে ১৯৭৭ সালের ২১ এপ্রিল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন।

জন্ম ও পারিবারিক পরিচিতিঃ আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েম বর্তমান রংপুর জেলায় (তৎকালীন বাংলা প্রদেশের অংশ) ১৯১৬ সালের ৮ জুলাই জন্ম গ্রহণ করেন।

শিক্ষাজীবনঃ তিনি রংপুর জিলা স্কুলে পড়া লেখা করেন এবং পরবর্তিতে কারমাইকেল কলেজে ভর্তি হন। বিচারপতি সায়েম কলকাতা প্রেসিডেন্সি কলেজে পড়ালেখা করেন ও ইউনিভার্সিটি ল’ কলেজ থেকে আইনে ডিগ্রি লাভ করেন।

কর্মজীবনঃ কলকাতা কোর্টে আইনজীবী হিসেবে কাজ করার পর ১৯৪৭ সালে সায়েম ঢাকা চলে আসেন। ঢাকাতে তিনি ঢাকা হাইকোর্টে প্রাকটিস শুরু করেন। বাঙালি রাজনীতিবিদ এ. কে. ফজলুল হকের সাথেও সায়েক কাজ করেন। একসময় তিনি ঢাকা হাই কোর্ট বার এসোসিয়েশনের তিনি নির্বাচিত মহাসচিব ও ভাইস-প্রেসিডেন্ট হন। পূর্ব পাকিস্তান আইনজীবী এসোসিয়েশন, পূর্ব পাকিস্তান বার কাউন্সিল এবং ঢাকা বোর্ড অফ দ্যা স্টেট বাংক অফ পাকিস্তানের সদস্য ছিলেন আবু সায়েম। জুলাই ৩, ১৯৬২ সালে সায়েম বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন।বাংলাদেশের স্বাধীনতা লাভের পর প্রথম প্রধান বিচারপতি হিসাবে আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েমকে নিয়োগ দেয়া হয় এবং বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালের ১২ জানুয়ারি বিচারপতি সায়েমকে শপথ বাক্য পাঠ করান।

রাজনৈতিক জীবনঃ বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর বিচাপতি সায়েমকে ১২ জানুয়ারি ১৯৭২ তে দেশের প্রথম প্রধান বিচারপতির দ্বায়িত্ব দেওয়া হয়। ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর ও ৬ নভেম্বর এর সামরিক অভ্যুত্থানের পর বিচাপতি সায়েমকে দেশের রাষ্ট্রপতি ও প্রধান সামরিক প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। ১৯৭৬ সালের ২৯ নভেম্বর তিনি জিয়াউর রহমানের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করেন। ১৯৭৭ এর ২১ এপ্রিল তিনি দূর্বল স্বাস্থ্যের কারণে রাষ্ট্রপতির ক্ষমতা ছেড়ে দেন।

রচনাবলীঃ বিচারপতি সায়েম তার আত্মজীবনী লেখেন “বঙ্গভবনে:শেষ অধ্যায়” (১৯৮৮)। এ বইটিতে তিনি ১৯৭৫-৭৭ এর মাঝের দেশের রাজনৈতিক ঘটনাগুলো উল্লেখ্য করেন।

মৃত্যুঃ বিচারপতি সায়েম ১৯৯৭ সালের ৮ জুলাই ৮১ বছর বয়সে মৃত্যু বরণ করেন।

সম্পাদনায়ঃ এ বি এম শাহজাহান আকন্দ (মাসুম), আইনজীবী, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*