রবিবার , ২০ মে ২০১৮
সদ্যপ্রাপ্ত
খালেদার জামিন নিয়ে আপীল বিভাগের সিদ্ধান্ত ১৫ মে

খালেদার জামিন নিয়ে আপীল বিভাগের সিদ্ধান্ত ১৫ মে

মে ৯, ২০১৮

বিডি ল নিউজঃ অবশেষে হাইপ্রোফাইল খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি শেষ হলো তুমুল হট্টগোলের মধ্য দিয়ে। আজ বুধবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের বেঞ্চ এই শুনানি গ্রহণ করে আগামী মঙ্গলবার (১৫ মে) আদেশের জন্য দিন ঠিক করেছেন। এর আগে আজ সকালে খালেদা জিয়ার আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী, খন্দকার মাহবুব হোসেন, জয়নুল আবেদীন ও মওদুদ আহমদ খালেদা জিয়ার জামিনের সপক্ষে যুক্তিতর্ক তুলে ধরেন। তাঁদের যুক্তিতর্ক শেষ হলে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আইনজীবী খুরশিদ আলম খান গতকাল মঙ্গলবারের মতো আজও জামিনের বিরোধিতা করে বক্তব্য দেন। খুরশিদ আলম খান আদালতকে বলেন, ‘দুদকের স্থায়ী কোনো প্রসিকিউশন নেই। দুদক তাঁদের অস্থায়ীভাবে নিয়োগ দেয়। যে মামলা পরিচালনা করার দায়িত্ব দেওয়া হয়, শুধু সেই মামলাই তাঁরা পরিচালনা করেন। মামলায় সাজা হলে মামলার সঙ্গে অনেক বিষয় জড়িত থাকে। এর সঙ্গে রাষ্ট্রও জড়িত। জরিমানা আদায়সহ নানা বিষয়ে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারদের ভূমিকা থাকে।

এ সময় আদালত দুদক আইনজীবীকে প্রশ্ন করেন, আপনি একটা কেস দেখান যে হাইকোর্ট কোনো মামলায় জামিন দিয়েছিলেন, সেখানে আপিল বিভাগ হস্তক্ষেপ করেছিলেন কি না। এ ছাড়া আদালত তাঁর কাছে আরও জানতে চান, এই মামলার প্রধান আসামি কে? খুরশিদ আলম তখন আদালতকে জানান, ‘এখানে বিচারিক আদালত ভুল করেছে। যে কারণে আমরা হাইকোর্টে রিভিশন করেছি।’

এরপর বেলা একটার দিকে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম তাঁর বক্তব্য শুরু করেন।

এই মামলায় অ্যাটর্নি জেনারেলের অংশগ্রহণ নিয়ে খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের বিভিন্ন বক্তব্যের প্রসঙ্গে অ্যাটর্নি জেনারেল আদালতকে বলেন, তিনি ২০০৯ সালে অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন শুরু করেন। তিনি রাষ্ট্রপক্ষে প্রথম যে মামলাটিতে অংশ নিয়েছিলেন, সেটি ছিল মানি লন্ডারিং আইনের একটি মামলা। এ ছাড়া এই মামলাতেই বিচারিক আদালতের একটি সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা উচ্চ আদালতে আসলে সেখানেও অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে তিনি অংশ নিয়েছিলেন। এর বাইরেও উচ্চ আদালতের মামলার রেফারেন্স তুলে ধরে অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে যে অংশ নিয়েছিলেন, সেই কথাও জানান মাহবুবে আলম।

এ সময় প্রধান বিচারপতি তাঁকে বলেন, ‘আমরা তো আপনাকে অ্যাডমিট করেছি।’ বেঞ্চের অপর একজন বিচারপতি মির্জা হোসেন হায়দারও অ্যাটর্নি জেনারেলের উদ্দেশে বলেন, ‘বাংলাদেশের অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে যেকোনো মামলায় আপনি অংশ নিতে পারেন।’

এরপর অ্যাটর্নি জেনারেল জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় টাকা কীভাবে এসেছিল, সেই টাকা নিয়ে কীভাবে দুর্নীতি হয়েছে এবং খালেদা জিয়াসহ অন্য আসামিরা কীভাবে অভিযুক্ত—বিচারিক আদালতের নথিপত্র থেকে এই তথ্য তুলে ধরতে থাকেন।

অ্যাটর্নি জেনারেল যখন কথা বলছিলেন, তখন খালেদা জিয়ার আইনজীবী জয়নুল আবেদীন বাধা দিতে থাকেন, বিএনপিপন্থী কিছু আইনজীবী হইচই করতে থাকেন। সে সময় অ্যাটর্নি জেনারেল প্রধান বিচারপতির উদ্দেশে বলেন, ‘টাকা কীভাবে চলে গেছে, সেটা তো আমাকে বলতে হবে।’ সে সময় খালেদা জিয়ার আইনজীবী মাহবুব উদ্দীন খোকনও জোরে কথা বলতে থাকেন, আইনজীবীরাও চিৎকার করতে থাকেন।

পরে প্রধান বিচারপতি আইনজীবীদের উদ্দেশে বলেন, ‘এভাবে হইচই করলে কোর্ট চালাতে পারব না।’ তখন খালেদা জিয়ার আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী জয়নুল আবেদীনসহ অন্য আইনজীবীদের চিৎকার করতে বারণ করেন। এ পর্যায়ে প্রধান বিচারপতি অ্যাটর্নি জেনারেলকে তাঁর যুক্তিতর্ক তুলে ধরতে বলেন। অ্যাটর্নি জেনারেল প্রধান বিচারপতিকে বলেন, ‘এমন পরিবেশে কীভাবে সাবমিশন রাখব।’

এরপর হইচই বন্ধ হলে অ্যাটর্নি জেনারেল তাঁর বক্তব্য তুলে ধরেন। এ সময় তিনি খন্দকার মাহবুব হোসেন, জয়নুল আবেদীন, মওদুদ আহমদ ও এ জে মোহাম্মদ আলীর দেওয়া যুক্তিতর্ক খণ্ডন করেন।

অ্যাটর্নি জেনারেল আদালতকে বলেন, খালেদা জিয়ার যে রোগের কথা বলা হচ্ছে, সেই রোগ নিয়ে তিনি প্রধানমন্ত্রিত্ব করেছেন। এই রোগ নিয়েই তিনি সবকিছু করছেন। এটা সহনীয়। এই কারণে খালেদা জিয়ার জামিন হতে পারে না।

এর পরপরই প্রধান বিচারপতি আগামী মঙ্গলবার আদেশের জন্য দিন ধার্য করে এজলাস ত্যাগ করেন।

এর আগে খালেদা জিয়ার জামিনের গুরুত্ব তুলে ধরে তাঁর আইনজীবী জয়নুল আবেদীন আদালতকে বলেছেন, ‘খালেদা জিয়ার অবস্থা গুরুতর। জেলখানায় চিকিৎসা হচ্ছে না। আমরা খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করেছি। তাঁর হাত ফুলে উঠেছে। ঘাড় নাড়াতে পারছেন না। কথাও বলতে পারছেন না। অথচ অ্যাটর্নি জেনারেল বলছেন, খালেদা জিয়া বিশ্রামে আছেন। মানুষের জন্য আদালত, আদালত সবকিছুই দেখবেন।’ তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়ার বয়স এখন ৭৩ বছর। আদালতের চোখ আছে, মন আছে, বিবেক আছে। পাবলিক পারসেপশন আছে। এই কোর্ট ছাড়া আমাদের যাওয়ার আর কোনো জায়গা নেই।’

এ সময় জয়নুল আবেদীন খালেদা জিয়ার জামিনের সপক্ষে উচ্চ আদালতের বিভিন্ন সিদ্ধান্ত তুলে ধরেন। জয়নুল আবেদীন অভিযোগ করেন, ‘অনেক মামলায় জামিন হয়ে গেছে। দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তো আপিল করে না।’ এ সময় তিনি সরকারদলীয় দুজন গুরুত্বপূর্ণ নেতার মামলায় জামিন ও খালাসের বিরুদ্ধে দুদকের আপিল না করার বিষয়টি আদালতের কাছে তুলে ধরেন।

সকালে শুনানির শুরুতে জয়নুল আবেদীন বলেন, অ্যাটর্নি জেনারেল এই মামলায় কোন অথোরিটি নিয়ে শুনানিতে অংশ নিয়েছেন? তখন আদালত তাঁর উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারাই তো রাষ্ট্রপক্ষকে সংযুক্ত করেছেন।’ সে সময় জয়নুল আবেদীন বলেন, ‘দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষ যখন এক হয়, তখন ন্যায়বিচার পাওয়া নিয়ে আমাদের সংশয় দেখা দিয়েছে।’ তিনি আদালতকে আরও বলেন, ‘লঘু দণ্ডের যেসব মামলায় হাইকোর্ট জামিন দিয়েছেন, সে ক্ষেত্রে উচ্চ আদালত সাধারণত হস্তক্ষেপ করেন না।’

এ ছাড়া খালেদা জিয়ার অপর আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন তাঁর শুনানির শুরুতে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার প্রেক্ষাপট তুলে ধরেন। তিনি আদালতের কাছে দাবি করেন, ১/১১ সরকারের সময় এই মামলা শুরু হয়েছিল। এ সময় তিনি পত্রিকার খবর পড়ে আদালতকে বলেন, ‘এখন সারা দেশে নিম্ন আদালত ও উচ্চ আদালতে লাখ লাখ মামলা ঝুলে আছে। অ্যাটর্নি জেনারেল আদালতের ওপর দায় দিয়ে অশুভ পাঁয়তারা করছেন।’

আদালতের উদ্দেশে খন্দকার মাহবুব বলেন, ‘আমি চ্যালেঞ্জ করছি, হাইকোর্ট কোনো মামলায় জামিন দিলে আপিল বিভাগ সেখানে হস্তক্ষেপ করেন না। করার নজির নেই।’ তখন প্রধান বিচারপতি তাঁর উদ্দেশে বলেন, ‘যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের মামলায় হাইকোর্ট জামিন দিলেও আমরা তা আটকে দিয়েছি।’

খন্দকার মাহবুব বলেন, ‘খালেদা জিয়া সম্পূর্ণ নির্দোষ। এই মামলা-সংশ্লিষ্ট কোনো কাগজপত্রে তাঁর কোনো স্বাক্ষর নেই। এই মামলা যখন শুরু হয়েছিল, তখন ছিল মাইনাস টু ফর্মুলা। আর এখন ফর্মুলা মাইনাস ওয়ান।’

দিনের শুরুতে সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল খালেদা জিয়ার আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘হাইকোর্টে কোনো মামলায় জামিন হলে উচ্চ আদালত সাধারণত সেখানে কোনো হস্তক্ষেপ করেন না। বাংলাদেশের অ্যাটর্নি জেনারেল, তিনি কোনো পার্টির অ্যাটর্নি জেনারেল না।’

এই মামলায় বিচারিক আদালত তাঁর রায়ে কিছু ভুল করেছেন বলে দাবি করেন এ জে মোহাম্মদ আলী। আদালতের উদ্দেশে এ জে মোহাম্মদ আলী সম্প্রতি পুলিশের হেনস্তার শিকার হওয়ার ঘটনার কথা তুলে ধরে বলেন, ‘আমার এই কথা অন্যভাবে দেখবেন না। জামিন হবে কি হবে না? ক্লিয়ারেন্স আছে কি নেই?’ তখন আদালত বলেন, ‘এগুলো বলে লাভ নেই।’

আজ প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের আপিল বেঞ্চে এই শুনানি চলছে। দ্বিতীয় দিনের শুরুতে সকাল ৯টা ২৫ মিনিটের দিকে খালেদা জিয়ার আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী শুনানি শুরু করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*